ড. এসএ মালেকের সাংগঠনিক দিক নির্দেশনামূলক বিবৃতি

ড. এসএ মালেকের সাংগঠনিক দিক নির্দেশনামূলক বিবৃতি
বঙ্গবন্ধু পরিষদের সাধারণ সম্পাদক ডা. এস এ মালেক সংগঠনের সকল স্তরের-নেতাকর্মী, সমর্থক ও শুভানুধায়ীসহ দেশবাসীকে মুজিববর্ষের শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন জানিয়েছেন। এই প্রবীণ রাজনীতিবিদ আজ এক বিবৃতির মাধ্যমে বঙ্গবন্ধু পরিষদের সাংগঠনিক কর্মকান্ড নিয়ে দিক নির্দেশনামূলক মতামত ব্যক্ত করেছেন।
বঙ্গবন্ধু পরিষদ গঠনের ঐতিহাসিক প্রেক্ষাপট সকলেই অবগত আছেন। জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও তার পরিবারের সদস্যদের নির্মম হত্যাকান্ডের পর দেশ যখন স্বাধীনতা বিরোধীদের দ্বারা পরিচালিত, মুক্তিযুদ্ধের চেতনার উপর চরম আঘাত আসে, কুখ্যাত আইন পাশ করে বঙ্গবন্ধু ও তার পরিবারের সদস্যদের হত্যার বিচার নিষিদ্ধকরণ, জাতির সেই চরম ক্রান্তিলগ্নে জাতির পিতার হত্যার বিচার দাবি নিয়ে মূলত বঙ্গবন্ধু পরিষদ রাজপথে প্রতিবাদ মুখর হয়েছিল। এই ঘৃণ্য হত্যাকান্ডের বিরুদ্ধে আন্তর্জাতিক জনমত সৃষ্টি ও হত্যার দ্রুত বিচার কার্যকর করার দাবিতে ব্যাপক রাজনৈতিক কর্মসূচি পালন করে সংগঠনটি। শোককে শক্তিতে পরিনত করে জাতির পিতার নির্মম হত্যাকান্ডের প্রতিবাদে সংগঠনটির কার্যক্রম সেই সময় ব্যাপক প্রশংসিত হয়েছিল। পরবর্তিতে বঙ্গবন্ধু হত্যার বিচারসহ জাতির পিতার আদর্শ, রাজনৈতিক দর্শন, সংগ্রামী জীবন এবং স্বাধীনতার প্রকৃত ইতিহাস জাতির সামনে তুলে ধরতে ও ইতিহাস বিকৃত রোধে বঙ্গবন্ধু পরিষদ নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছে।
আমি সর্বপ্রথম শ্রদ্ধাবনত চিত্তে স্মরণ করছি, বোস প্রফেসর ড. আব্দুল মতিন চৌধুরীর প্রতি; যার নেতৃত্বে ও অনুপেরণায় বঙ্গবন্ধু পরিষদ গঠিত হয়েছিল। আমি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করছি, প্রতিষ্ঠাকালিন থেকে যেসব নেতাকর্মী, ব্যক্তি, সমর্থক ও শুভানুধ্যায়ীদের প্রতি; যাদের শ্রম, মেধা ও আত্মত্যাগের বিনিময়ে সংগঠনটি দেশ-বিদেশে ব্যাপক পরিচিতি লাভ করেছে। বঙ্গবন্ধু পরিষদ বিভিন্ন শ্রেনী-পেশার মানুষ ও বুদ্ধিজীবীদের সমন্বয়য়ে গঠিত বুদ্ধিদীপ্ত ও জ্ঞানচর্চার গবেষণামূলক সংগঠন।
আপনারা সকলে অবগত আছেন, আমি বঙ্গবন্ধু পরিষদের সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হওয়ার পর থেকে সংগঠনের কার্যক্রম সুষ্ঠ ও সঠিকভাবে পরিচালনা করে আসছি। নতুন নেতৃত্ব প্রতিষ্ঠার উদ্যোগও নিয়েছি। নানাবিধ প্রতিকূলতার কারণে জাতীয় সম্মেলন অনুষ্ঠিত করা সম্ভব হয়নি। আর বৈশ্বিক মহামারীর কারণে এই দুর্যোগময় মুহুর্তে জাতীয় সম্মেলন অনুষ্ঠিত করা সম্ভবপর নয়। জাতির এই চরম বিপর্যয় মুহুর্তে আপনাদের সকলের প্রতি আমার অনুরোধ সকলে ঐক্যবদ্ধভাবে নিজ নিজ অবস্থান থেকে সাধ্যমত সাংগঠনিক কর্মসূচি পালন করবেন। আগামীতে পরিস্থিতি স্বাভাবিক হলে সফল সম্মেলনের মাধ্যমে নতুন নেতৃত্ব গড়ে তুলবেন ও বঙ্গবন্ধুর রাজনৈতিক দর্শন বাস্তবায়নে কাজ করবেন। আমি সকলের প্রতি সেই প্রত্যাশা করছি।
আমি জীবনের শেষ প্রান্তে উপনীত হয়েছি। দীর্ঘ সময় সংগঠনের নেতৃত্ব দিতে গিয়ে আমার ভুল-ভ্রান্তি হয়েছে। অবশ্যই ক্ষমাসুন্দর দৃষ্টিতে দেখবেন। আমার সর্বশেষ পরামর্শ, আপনারা বঙ্গবন্ধুর নামের এই সংগঠনকে বাঁচিয়ে রাখবেন ও সকলে ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করবেন। দেশ ও জাতির কল্যাণে সব সময় নিজেকে আত্মনিয়োগ করবেন। আপনাদের সকলের সুস্বাস্থ্য ও মঙ্গল কামনা করছি।
করোনা মহামারীর সময় স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলুন ও নিজে সুস্থ থাকুন এবং দেশকে বাঁচান।

What's Your Reaction?

like
0
dislike
0
love
1
funny
0
angry
0
sad
0
wow
0